আবারও কয়েক হাজার টাকার ক্ষতির মুখে চীনা সরকার, রাখী থেকে দীপাবলি ভারতে আর ঢুকতে পারবে না চীনের সামগ্রী…

বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর কারণে সারা বিশ্ব এখন চীনের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। চীনকে শায়েস্তা করার জন্য তারাও উঠে পড়ে লেগেছে বর্তমানে। অন্যদিকে সীমান্ত নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে সংঘর্ষ বেধেছে। যদিও এর ফল ভুগতে শুরু করেছে চীন।ভারতের ব্যবসায়িক – The Confederation of India Traders চীনা পণ্য বয়কট করার ডাক দিয়েছে। যদিও এই ঘটনার অনেকদিন আগের থেকেই ভারতীয়রা চীনা দ্রব্য বর্জন করার কথা জানিয়ে আসছিল। তবে যেদিন থেকে ভারতের গালওয়ান উপত্যকায় চীন এবং ভারতের সংঘাতের ঘটনা ঘটে তারপর থেকে সারা দেশ জুড়ে চীনা পণ্য বয়কট করার উদ্যোগ নিয়েছে সকল ভারতবাসী।

এরপর কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে টিকটক সহ আরোও 59 টি চীনা অ্যাপ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর প্রধান কারণ হল এই সমস্ত চীনা অ্যাপগুলি ব্যবহার কারীদের তথ্য পাচার করতো বলে অভিযোগ উঠে এসেছে গোয়েন্দা মহল থেকে। শুধু তথ্য পাচার নয় এই অ্যাপগুলি ভারতবাসী ব্যবহার করার ফলে ভারতের কাছ থেকে অনেক মোটা অংকের টাকা যেত চীনের কাছে যার ফলে চীন অর্থনৈতিক ভাবে দিনের-পর-দিন শক্তিশালী হয়ে উঠছিল। চীনকে অর্থনৈতিক দিক থেকে কম জোর করতেই এরকম এক পদক্ষেপ নিয়েছে মোদি সরকার যার ফলে ইতিমধ্যে চীনের ব্যবসায়ীক ভান্ডারে টান পড়তে শুরু করেছে।

আর ভারতের ব্যবসায়ীরাও এই মুহূর্তে বাজার ধরতে মেক ইন ইন্ডিয়ার দ্রব্য ব্যবহারে উদ্যোগী করে তুলছেন দেশের জনগণকে। আর চীনের অর্থনৈতিক অবস্থাকে আরও দুর্বল করে তুলতে মাঠে নেমে পড়েছে ভারতের ব্যবসায়ীরাও যার দরুন তারা এবার আসন্ন উৎসব রাখি এবং দীপাবলি সময়ও কোন রকম চীনা পণ্য বিক্রি করতে নারাজ রয়েছেন।তাদের দাবি সম্পূর্ণরূপে ভারতে তৈরি হওয়া অর্থাৎ মেক ইন ইন্ডিয়া জিনিসই তারা বাজারে আনতে চাইছেন। এই পরিকল্পনাকে বাস্তবে রূপান্তরিত করতে তারা ইতিমধ্যে উঠে-পড়ে লেগেছেন।


আর এই পরিকল্পনা যদি সফল হয়ে যায় তাহলে বলা যেতে পারে এর ফলে চীনের সরকার প্রায় কুড়ি হাজার কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবে। আর এ বিষয়ে কনফেডারেশন অফ ইন্ডিয়া ট্রেডার্স এর মতে আগামী মাস থেকে শুরু হচ্ছে ভারতে উৎসবের মরসুম, যদিও বর্তমানে করোনা সংক্রমণে জেরে বাজারে ক্রেতা এবং বিক্রেতা সংখ্যা অনেকটা কম রয়েছে তবে ব্যবসায়ীরা চীনাপণ্য কোন ভাবে রাখতে চাইছেন না । আর ইতিমধ্যে যে সকল চীনা পণ্য বয়কট করা হবে সেগুলির ও তালিকা প্রস্তুত করে নেওয়া হয়েছে।


এই সংস্থার দাবি তারা হিসাব-নিকাশ করে নিয়েছে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে কতখানি পরিমাণে চীনা পণ্য বিক্রি হয়ে থাকে। যার ফলে তারা এবার সে সকল চীনা পণ্য বর্জন করে দেশীয় পণ্য সমপরিমানে সমস্ত বাজারে পাঠিয়ে দেবে। চীনকে শায়েস্তা করার পথে তারা পুরোপুরি ভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছে তবে এক্ষেত্রে শুধু ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বললে চলবে না দেশের সাধারণ মানুষও কিন্তু সীমান্তে চীন যে দাদাগিরি দেখিয়েছিল তার উপযুক্ত জবাব দিতে প্রস্তুত রয়েছে।

Related Articles

Back to top button