করোনাকালে ISRO-র আবারও এক বড় সাফল্য, উন্নত হতে চলেছে টেলিভিশন-ইন্টারনেট পরিষেবা…

দেশজুড়ে এখন চলছে করোনা মহামারী আর এই করোনা মহামারীর আবহের মধ্যেই বড় সাফল্য লাভ করলো ইসরো। ইসরোর তরফ থেকে দেশের ইন্টারনেট এবং টেলি যোগাযোগ ব্যবস্থায় এক নতুন বিপ্লব আনতে নয়া কৃত্রিম উপগ্রহ বা যাকে আমরা স্যাটেলাইট বলে থাকি সেটি উৎক্ষেপণ করল ভারত। এ বিষয়ে ইসরো মারফত যে খবর মিলেছে সেখানে জানতে পারা যাচ্ছে PSLV-CMS-01 মিশনের কাউন্টার বুধবার বেলা আড়াইটে নাগাদ সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টার এর শুরু হয়। যার নির্ধারিত সময়কাল ছিল বৃহস্পতিবার বিকেল 3.41 মিনিট।

 

 

 

এইদিন ঠিক সেই সময়ই শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টারের দ্বিতীয় লঞ্চ প্যাড থেকে এই উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করা হয়। যদিও এর আগেই এই উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করার সময়কাল নির্ধারিত করা হয়েছিল তবে খারাপ আবহাওয়ার কারণে এই উপগ্রহের উৎক্ষেপণ বেশ কয়েকবার পেছিয়ে গিয়েছিল। ইতিমধ্যেই এই স্যাটেলাইট তার নিজের অরবিটে পৌঁছে গিয়েছে বলেও খবর আর পাশাপাশি প্রাথমিক কাজকর্ম শুরু করে দিয়েছে। তবে বলে রাখি এটি সম্পূর্ণভাবে কার্যকর হতে আরও চার দিন সময় লাগবে।

 

 

 

ইসরোর CMS-01 টি হল 42 তম যোগাযোগ উপগ্রহ বা কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট।আর ইসরোর অধিকারিকরা জানিয়েছেন এই উপগ্রহটি হল ভারতের মূল ভূখণ্ড,যেটি আগামী দিনে আন্দামান-নিকোবর এবং লাক্ষাদ্বীপে বর্ধিত সি ব্যান্ড পরিষেবা প্রদান করবে। যার ফলে একদিকে যেমন টেলিভিশন চ্যানেলের দৃশ্যমানতার পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে ঠিক সেরকম টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় সাহায্য মিলবে আগামী দিনে। এই স্যাটেলাইটটি 2011 সালে চালু হওয়া জিএসটি টেলিযোগাযোগ উপগ্রহ কে প্রতিস্থাপন করবে।

 

 

আর এটি আগামী 7 বছরের জন্য কাজ করবে। যার ফলে বলা যেতে পারে এটি করোনা কালে ইসরোর দ্বিতীয় সফল অভিযান। প্রথমদিকে, এই উপগ্রহ উৎক্ষেপণের দিনকাল ঠিক করা হয়েছিল 7 ডিসেম্বর তারপর সেটি বেড়ে 8 ডিসেম্বর ধার্য করা হয় তবে সেদিন এর উৎক্ষেপণ হয় নি তারপর 14 ই ডিসেম্বর তবে খারাপ আবহাওয়ার কারণে পরবর্তী কালে ঠিক করা হয় আগামী 17 ই ডিসেম্বর এর উৎক্ষেপণ করা হবে, যা আজ সম্ভব হয়েছে।