ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখতে প্রধানমন্ত্রীকে রাজ্যে আমন্ত্রণ মুখ্যমন্ত্রী মমতার..

সুপার সাইক্লোন আমফানের তাণ্ডবে পশ্চিমবঙ্গের মৃত্যু হয়েছে 72 জনের একথা বৃহস্পতিবার দিন নবান্নে জানিয়ে দিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এরই পাশাপাশি তিনি রাজ্যের বিপর্যয় আইন এর জেরে ঘূর্ণিঝড়ে মৃত পরিবারদের পিছু আড়াই লক্ষ টাকা করে আর্থিক সহযোগিতা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন।যার দরুন ইতিমধ্যে একটি
টাস্ক ফোর্সও গঠন করা হয়েছে যেটি আগামী 7 দিনের মধ্যে বাংলাতে এই সুপার সাইক্লোন এর জেরে যে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার পুরোপুরি রিপোর্ট পেশ করবে। গতকাল কলকাতাতে ঘূর্ণিঝড়ের সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় 133 কিলোমিটার।

আর রাজ্যে তরফ থেকে বিভিন্ন প্রান্তে এই ঘূর্ণিঝড়ের জেরে যেসব ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা পর্যবেক্ষনের কাজ শুরু হয়ে গেছে ইতিমধ্যে। আর আজ নবান্নের সাংবাদিক বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিজে এসে সুন্দরবন ও তার সংলগ্ন এলাকায় ক্ষয়ক্ষতি পর্যবেক্ষণের অনুরোধ করেছেন। যদিও এরকম এক পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী, রাজ্যকে সমস্ত রকম সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছেন আর এই বিষয়ে আজ বৃহস্পতিবার দিন অমিত শাহের সঙ্গে কথা হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।

সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে আমফানের জেরে ক্ষয়ক্ষতির পর্যবেক্ষণ করতে রাজ্যে আসার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। তিনি জানান প্রধানমন্ত্রীকে আসতে অনুরোধ করেছি যেনো তিনি নিজে এসে সুন্দরবন ও সংলগ্ন এলাকায় যে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা দেখে যেতে পারেন। যদিও এই বিষয়ে আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে টুইট করতে দেখা যায় যেখানে তিনি ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্ত এলাকায় কাজ করা বিপর্যয় মোকাবিলা দলের কথায় জানান।

পাশাপাশি তিনি জানান পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সাথে হাত মিলিয়ে কাজ করছেন শীর্ষ অধিকারীকরা তার পাশাপাশি পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছেন, এক্ষেত্রে সাধারণ কে সহযোগিতার পথে চেষ্টার কোন কমতি থাকবে না বলে জানান তিনি। এদিকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজকে নবান্নের এই সাংবাদিক বৈঠকে জানান ঘূর্ণিঝড় আমফানের জেরে বাংলাতে মৃত্যু হয়েছে 72 জনের। এর মধ্যে কলকাতাতে মৃত্যু হয়েছে 15 জনের, উত্তর 24 পরগনায় 17 জনের, বসিরহাটে 10 জনের, হাওড়াতে 7 জনের,ডায়মন্ড হারবারে 8 জনের,পূর্ব মেদিনীপুরে 6 জনের, চন্দননগরে 2 জন,রানাঘাটে 6 জনের,বারুইপুরে 6 জনের।

এর পাশাপাশি তিনি এই বৈঠকে জানান মৎস্য, খাদ্য প্রক্রিয়া করণ, পশুপালন দফতরের আধিকারিক ও মুখ্যসচিবকে নিয়ে একটি বিশেষ টাস্ক ফোর্স গঠন করা হচ্ছে এক্ষেত্রে। এইদিন মুখ্যমন্ত্রীর সাথে অমিত শাহের যে কথা হয় সেখানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে দ্রুত আর্থিক সহযোগিতার দাবিও করেন।আগামীকাল শুক্রবার দিন ঠিক সকাল 10.30 তে দমদম বিমানবন্দরে আসতে চলেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিমান। আর এই ঘূর্ণিঝড় আমফানের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতেই রাজ্যে আসছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী যা জানতে পারা যাচ্ছে সেখানে জানা যাচ্ছে আগামীকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসিরহাটে হেলিকপ্টারের করে আকাশপথের মাধ্যমেই এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে যেসব ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার পর্যবেক্ষণ করা হবে এবং আর এই সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থাকতে পারেন তার সঙ্গে।

Related Articles

Back to top button