লক্ষ্য 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন! এই উদ্দেশ্যে তিন রাজ্যের নেতাদের সাথে বৈঠক অমিত শাহের..

লোকসভা নির্বাচনে বিপুল জনাদেশ নিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় ফিরেছে মোদি সরকার৷ বেড়েছে মানুষের প্রত্যাশাও৷ সাধারণ নির্বাচনে ভাল ফলাফলে যাতে দলের নেতা-কর্মীরা আত্মতুষ্টিতে না ভোগেন, সেদিকেও লক্ষ্য রাখছেন তিনি৷ একইভাবে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে শুরু করেছেন ঘুঁটি সাজানোর কাজ৷ এবং সে লক্ষ্যেই রবিবার হরিয়ানা, মহারাষ্ট্র ও ঝাড়খণ্ড বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে জরুরী বৈঠকে বসছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি৷

সূত্রের খবর, এদিন প্রথমে হরিয়ানার বিজেপি নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন অমিত শাহ৷ তারপর বৈঠক সারবেন যথাক্রমে ঝাড়খণ্ড ও মহারাষ্ট্রের নেতৃত্বের সঙ্গে৷ বৈঠকে রাজ্য নেতৃত্বের পাশাপাশি উপস্থিত থাকবেন অমিত শাহের কোর টিমের সদস্যরাও৷ বৈঠকে এই তিন রাজ্যে বিজেপির রণকৌশল নিয়ে প্রাথমিক আলোচনার পাশাপাশি দলের দুর্বল দিকগুলি নিয়েও কথাবার্তা হতে পারে বলে নয়াদিল্লি সূত্রে খবর৷ একই সঙ্গে কথা হতে পারে প্রচার কৌশল, বিরোধীদের দুর্বলতা ইত্যাদি প্রসঙ্গেও৷

যে তিন রাজ্যের নেতাদের সঙ্গে এদিন বৈঠকে বসবেন শাহ, বর্তমানে সেই তিন রাজ্যেই ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি৷ লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল পর্যালোচনা করে আরও একবার এই রাজ্যগুলিতে সরকার গড়ার বিষয়ে আত্মবিশ্বাস প্রকাশ করছেন পদ্ম শিবিরের নেতারা৷ তবে এই আত্মবিশ্বাস যাতে আত্মতুষ্টিতে পরিণত না হয়, সূত্রের খবর, রাজ্য নেতাদের সেই হুঁশিয়ারি দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভোট সেনাপতি অমিত শাহ৷ রাজনৈতিক মহলের মতে, লোকসভা নির্বাচনে ১৪টি মধ্যে ১২টি আসন পাওয়ার পরেও ঝাড়খণ্ডে বিরোধীদের সঙ্গে জোরটক্কর দিতে হবে গেরুয়া শিবিরকে৷ কারণ, রাজ্যের মানুষের মধ্যে যে সরকারবিরোধী মনোভাব তৈরি হয়েছে, অনুমান তারই প্রতিফলন ঘটবে ভোটবাক্সে৷

ফলে ওই রাজ্যে খারাপ ফলাফল করতে পারে মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাসের সরকার৷ সেখানে বিজেপির সঙ্গে লড়াই হবে কংগ্রেস, আরজেডি ও ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার জোটের৷ বাকি দুই রাজ্য হরিয়ানা ও মহারাষ্ট্রের ক্ষেত্রে সেই লড়াইয়ের সম্ভবনা অনেকটা কম বলেই মত বিশেষজ্ঞদের৷ ওয়াকিবহাল মহলের মতে, হরিয়ানায় বেশ নিরাপদেই রয়েছে মনোহর লাল খাট্টারের সরকার৷ একইভাবে মহারাষ্ট্রে বিজেপি-শিবসেনা জোটের তুলনায় অনেকটাই দুর্বল কংগ্রেস-এনসিপি জোট৷ ফলে লড়াইটা এই দুই রাজ্যে অনেকটাই সহজ৷