‘আমি কোনো দেশদ্রোহী নয়’ ছবি বয়কটের ডাক উঠতেই ক্ষমা চাইলেন আমির খান, দেশবাসীর প্রতি করলেন এই বিশেষ আর্জি

বলিউডে যেন শনির গ্রহণ লেগেছে। কোনভাবেই যেন পুরনো যৌলস আর ফিরে পাচ্ছেনা বলিউড। মহামারীর পর সকলে নিউ নরমাল লাইফে ফিরে এলেও বলিউড কিছুতেই যেন নিয়ম নরমাল লাইফে ফিরে আসতে পারছে না, হাজার চেষ্টা করেও। বলিউডকে মাথা ছাড়া দিয়ে দাঁড় করানোর জন্য এবার মাঠে নেমেছেন বলিউডে তিন খান। পারবেন কি তারা সফল হতে?? আপাতত ছবি কিন্তু অন্য কথা বলছে। কিছুদিন আগেই মুক্তি পেয়েছে আমির খান অভিনীত লালচিং চাড্ডা। কিন্তু মুক্তির পরেই আরো একবার এই সিনেমা বয়কটের ডাক দিয়েছেন জনগন। নিজের সিনেমা রক্ষা করার জন্য কি বললেন আমির খান চলুন জেনে নেওয়া যাক।

একসময় একের পর এক ব্লকবাস্টার সিনেমা আমাদের উপহার দিয়েছেন আমির খান এবং আমরাও সেই সব সিনেমা মন প্রাণ দিয়ে ভালবেসেছি। কিন্তু কিছু কিছু ঘটনা এমন ঘটে যায় যা কোনদিন মানুষ ভুলতে পারে না ঠিক তেমনি একটি ঘটনা ঘটেছিল ২০১৫ সালে। ২০১৫ সালে আমির খান একবার মন্তব্য করেছিলেন, “ভারত জুড়ে বাড়ছে অসহনীতা”। মন্তব্য ঘিরে বহু কাটাছেঁড়া হলেও সেই মন্তব্যের রেশ যে এত দীর্ঘ মেয়াদী হতে পারে তা হয়তো বুঝতে পারেননি আমির খান নিজেও।

২০১৫ সালে আমির খান বলেছিলেন, “আমাদের দেশ সহনশীল, কিন্তু এখানকার মানুষ এই পরিবেশকে আরো অসুস্থ করে তুলছে”। এই মন্তব্য কে ঘিরে সোচ্চার হয়েছিলেন সারা ভারতবর্ষ। সকলেই একটা প্রশ্ন করেছিলেন কিভাবে একজন বলিউড স্টার এমন একটি মন্তব্য করলেন নিজের দেশের সম্পর্কে। সেই জের টেনে এত বছর পর আরও একবার লাল সিং চাড্ডা সিনেমাকে বয়কট করার ডাক দিলেন জনগন।

এতদিন পর নিজের ভুল বুঝতে পেরে সাফাই দেওয়ার চেষ্টা করলেন আমির খান। সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে তাকে যখন জিজ্ঞাসা করা হয়, “আপনার এটি মন্তব্য ঘিরে যে ঘৃণা এবং কটাক্ষের পরিবেশ তৈরি হয়েছে সেই সম্পর্কে আপনি কি বলতে চান”? উত্তরে আমির খান বলেন, “আমি আমার দেশকে বড্ড বেশি ভালোবাসি। দয়া করে আমার সিনেমা বয়কট করবেন না। আপনারা আমায় ভুল ভাবছেন। আমার মন্তব্য যদি কাউকে আঘাত করে তাহলে আমি খুবই দুঃখিত”।

কিন্তু এত কিছুর পরেও সাধারণ মানুষের মন বলবে কিনা, তা নিয়ে এখনো দ্বন্দ্বে রয়েছেন আমির খান নিজেও। শুধু ভারত বিরোধী অথবা হিন্দু ধর্ম বিরোধী কথা তিনি বলেছিলেন তা কিন্তু নয়, ভারতকে কটাক্ষ করা টার্কির প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিলেন তিনি যা এক কথায় ক্ষমা করা যায় না। এত কিছু ভুলের খেসারত যে এইভাবে দিতে হবে তা স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি মিস্টার পারফেকশনিস্ট।