আবারো চাপ বাড়তে চলেছে মধ্যবিত্তদের! রান্নার গ্যাস, পেট্রোল-ডিজেলের পর এবার বাড়তে চলেছে ফোনের খরচ

শাকসবজি হোক অথবা বাজার চলতি যেকোনো জিনিস, রান্নার গ্যাস হোক অথবা পেট্রোল ডিজেল, অর্থাৎ নেসেসারি হোক অথবা লাক্সারি, সর্বদিক দিয়ে মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন মধ্যবিত্তদের অবস্থা শোচনীয়। এবার এই সমস্ত বর্ধিত দামের তালিকায় যোগ হলো মোবাইলের খরচ। আমাদের সকলের জীবনে স্মার্ট ফোন এবং নেট এমন একটি অপরিহার্য অংশ যা না থাকলে আমাদের চলে না।

সোমবার এয়ারটেলে তরফ থেকে জানানো হয়েছিল, আগামী কিছুদিনের মধ্যে বাড়ানো হবে সমস্ত প্ল্যানের খরচ। এয়ারটেল এমন একটি সংস্থা যার ওপর চোখ বন্ধ করে ভরসা করা যায় তাই এই কথা শুনে স্বাভাবিকভাবেই মাথায় হাত পড়েছে সাধারণ মধ্যবিত্তদের। এবার কথা বলি ভোডাফোনের। এয়ারটেলের পাশাপাশি ভোডাফোন একইভাবে বাড়িয়ে দিয়েছে তার প্ল্যানের মূল্য।

তবে এখনো পর্যন্ত রিলায়েন্স জিওর তরফ থেকে কোনো ঘোষণা শুনতে পাওয়া যায়নি। তবে জে পি মরগ্যান, ব্যাঙ্ক অফ আমেরিকা এবং এডেলউইজের মত সংস্থা গুলির মত অনুযায়ী, একই পথে হাঁটবে অন্যান্য টেলিকম সংস্থা। সংশ্লিষ্ট মহলের বক্তব্য অনুযায়ী, যেহেতু মধ্যবিত্ত এবং নিম্নবিত্তদের একটি বড় অংশ ব্যবহার করে প্রিপেড কারেকশন, তাই স্বাভাবিকভাবেই দুর্ভোগ আরো কিছুটা বেড়ে যাবে।

তবে এক্ষেত্রে আবার এয়ারটেলের শীর্ষকর্তা সুনীল মিত্তাল দাবি করেছেন, যদি উন্নত ব্যবস্থা আপনি চান তাহলে এটুকু খরচ আপনাকে করতেই হবে মাসিক। ফলে উন্নত ব্যবস্থা পাওয়ার জন্য এবার আপনার এবং আমাদের মত সাধারন মানুষকে খরচা করতে হবে ৭৯ টাকার বদলে ৯৯ টাকা। অর্থাৎ মাসিক বৃদ্ধি পেল প্রায় ২৫ শতাংশ।

 

এই প্রসঙ্গে ভোডাফোনের শীর্ষকর্তা রবীন্দ্র টক্কর জানিয়েছেন, টেলিকম শিল্পে এর আগেই মাসুল বৃদ্ধি হওয়ার কথা ছিল। যেটা এখনও পর্যন্ত করা সম্ভব হয়নি। সংস্থাগুলির হাল ফেরানোর জন্য এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি পদক্ষেপ। আন্তর্জাতিক বাজারে নিজেদের আরো কিছুটা চাঙ্গা করার জন্য এই পদক্ষেপ নেওয়া অবশ্যম্ভাবী বলেই মনে করছেন এয়ারটেল এবং ভোডাফোনের কর্মকর্তারা।