আলিয়া ভাট জেএনইউ হামলায় যা বললেন, তা বলিউডের অন্য অভিনেতা পর্যন্ত বললেন না…

দেশজুড়ে এখন একটা অশান্তির পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, প্রথমে NRC তারপর CAA পরে NPR, জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় এবং জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘটনার জেরে দেশজুড়ে এখন বিতর্কে পরিস্থিতি। তবে দেশে এরকম এক বির্তকের পরিস্থিতিতেও বলিউডের প্রথম সারির কোন অভিনেতাই এ বিষয়ে মুখ খোলেনি। যেখানে তিন খান, দুই রণবীর, অমিতাভ বচ্চন, দীপিকা-ক্যাটরিনা মত সুন্দরীরাও এ বিষয়ে চুপ রয়েছে।

তবে শেষ পর্যন্ত এই বিষয়ে মুখ খুললেন প্রথম সারির নায়িকাদের মধ্যে আলিয়া ভাট এবং নায়ক বরুণ ধাওয়ান। তবে পথে নেমে প্রতিবাদ বা মিডিয়াকে সরাসরি কোনও বাইট নয়। তারা নিজেদের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টের স্টোরিতে JNU-এর ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানালেন।এই ঘটনার জেরে নিজের ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে আলিয়া ভাট বেশ কিছু নিজের মন্তব্য প্রকাশ করেন।

যেখানে তিনি লিখেন এই ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে হচ্ছে টা কী যখন স্টুডেন্ট, টিচার এবং সাধারণ মানুষদের ওপর এরকম হামলা নিত্যদিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়ায় তখন দেখানো বন্ধ করুন যে সবকিছু ঠিকঠাক রয়েছে। আমাদেরকে এই সত্য ঘটনার মুখোমুখি হওয়া উচিত। তবে রবিবারের ঘটনার পরই অভিনেত্রী সোনম কাপুর, রিচা চাড্ডা, কঙ্কণা সেনশর্মা, অনুরাগ কাশ্যপ, তাপসী পান্নু,কৃতী শ্যাননের মতো বেশ কিছু বলিউড সেলেব এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদে সরব হন সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাঁদের মুখে একটাই বক্তব্য, ‘যা হয়েছে তা কখনই মেনে নেওয়া যায় না’!

 

তার সাথেই এই তালিকায় রয়েছেন অনুরাগ কাশ্যপ, রিচা চাড্ডা, তাপসী পান্নু, বিশাল ভরদ্বাজ, অনুভব সিনহারা। রয়েছেন অঙ্কর পাঠক, জোয়া আখতার, দিয়া মীর্জা, রাহুল বোসরাও। অন্যদিকে গতকাল মালংয়ের ট্রেলারের লঞ্চ চলাকালীন অনিল কাপুরকে এ বিষয়ে সাংবাদিকদের তরফ থেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি জানান এরকম এক হিংসাত্মক ঘটনার ছবি দেখে তিনি খুবই মর্মাহত। তারই সাথে তিনি বলেন এরকম এক ঘটনার তীব্র নিন্দা করা উচিত যা দেখেছি তা বেশ মর্মান্তিক।

এমনকি এরকম ঘটনার ফলে আমি খুবই বিরক্ত ছিলাম এবং আমি ওখানে যা ঘটেছে তা ভেবে রাতে ঘুমোতে পারিনি। হিংসার দ্বারা কোন সমস্যার সমাধানই হবে না। যারা এটা করেছে তাদের চরম শাস্তি হওয়া উচিত। একই সঙ্গে অনিলের সহশিল্পী আদিত্য রায় কাপুরও বলেছিলেন যে আমাদের দেশে হিংসার কোন দরকার নেই।