একসময় গায়ের রং কালো বলে মিলত না কাজ! আজ বলিউড কাঁপাচ্ছেন সুপারস্টার অজয় দেবগন

কোন গডফাদার ছাড়া যে সমস্ত অভিনেতা শুধুমাত্র নিজের অভিনয় ক্ষমতার দ্বারা আজ বলিউডে নিজের জায়গা করে নিতে পেরেছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন অজয় দেবগন। গায়ের রং কালো হওয়ার জন্য প্রথম দিকে পরিচালকদের তিরস্কারের শিকার হতে হয়েছিল তাঁকে। বলিউডের পরিচালক এবং প্রযোজকরা কোনদিন ভাবতেই পারেননি, কালো রঙের কোন ছেলে কখনও অভিনেতা হতে পারবেন।

বলিউড “সিংঘম”কে একদিন বডি শেমিং- এর শিকার হতে হয়েছিল। প্রথম দিকে তাঁকে কাজ দেওয়া হতো না। পার্শ্ব চরিত্রে অথবা কোন গুরুত্বহীন চরিত্রে রাখা হতো তাঁকে। কলেজ জীবন থেকে সংগ্রাম শুরু হয়েছিল অজয় দেবগনের। কলেজ জীবনে একসাথে দুটি বাইক চালাতে পারতেন তিনি। পারতেন একই সময় দুটি ঘোড়া চালাতে। ১৯৯১ সালে “ফুল অর কাটে” সিনেমাতে এই দৃশ্য আমাদের আজও চোখে ভাসে। এটি ছিল অজয় দেবগনের প্রথম ডেবিউ ছবি। প্রথম ছবিতেই অনিল কাপুর এবং শ্রীদেবী জুটির “লামহে” ছবিকে টেক্কা দিয়েছিল অজয় দেবগনের ছবি।

এরপর একে একে “সংগ্রাম”, “শক্তিমান”,”কানুন”, “বেদরদি”র মত সিনেমায় অভিনয় করেন তিনি। তবে এই সমস্ত সিনেমায় পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করতেন তিনি। তার প্রথম সুপারহিট সিনেমা ছিল “জখম”, মহেশ ভাটের পরিচালনায় এই ছবিতে পূজা ভাট এবং নাগার্জুনের ছেলের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন তিনি। এই ছবি তাঁকে এনে দিয়েছিল জাতীয় পুরস্কার। সিনেমায় অজয় দেবগনের শিশু চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন কুনাল খেমু।

এবার আসি ব্যক্তিগত জীবনের কথাতে। বলিউডে অভিনয় করতে করতে তিনি প্রেমের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে পড়েছিলেন রবীনা ট্যান্ডন এবং কারিশমা কাপুরের সঙ্গে। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি বিয়ে করেছেন কাজলকে। বর্তমানে দুই সন্তানকে নিয়ে সুখে সংসার করছেন তিনি।