এয়ারটেল দিতে চলেছে যুগান্তকারী পরিষেবা দেশজুড়ে, এবার থেকে রিচার্জ কিংবা ডাটা ছাড়ায় করা যাবে ফোন…

ভারতের টেলিকম কম্পানীগুলির মধ্যে এই প্রথম এয়ারটেল টেলিকম অপারেটর ভারতে নিয়ে আসলো ওয়াইফাই কলিং পরিষেবা। এর আগে এয়ারটেল তাদের গ্রাহকদের জন্য নিয়ে এসেছিল আকর্ষণীয় প্ল্যানের সুবিধা,আর এইভাবে যদি এয়ারটেল দিনদিন নতুন নতুন অফার এর সাথে আকর্ষণীয় ফিচার আনতে থাকে তাহলে এটা বলা অনিবার্য যে ভারতে এবার জিও তুলনায় এয়ারটেলের জনপ্রিয়তা বেড়ে উঠবে। কারণ যেখানে লক্ষ্য করা যাচ্ছে জিও তরফ থেকে IUC চার্জ লাগু করার পর, আগের তুলনায় জিওর ইন্টারনেটের স্পিড অনেক গুণ কমে গেছে।

অন্যদিকে এয়ারটেল তাদের গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখে ট্যারিফ প্ল্যানের দাম বাড়ালেও কোনপ্রকার IUC চার্জ লাগু করবে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে।আর আবারো সেই গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখেই এয়ারটেল (Airtel) নিয়ে এলো এই নতুন সুবিধা এই নতুন সুবিধার মাধ্যমে ওয়াইফাই (WiFi) এর সাহায্যে নিয়ে ভয়েস কলের (Voice Call) মতো ফোন করা যাবে আর কথা বলতে পারবে গ্ৰাহকেরা। আর এক্ষেত্রে কোন আলাদা করে অ্যাপ্লিকেশন (Application) ডাউনলোড করার প্রয়োজন পড়বে না। ঘরের ভেতরে থাকা ওয়াইফাই দিয়েই করা যাবে কল (Calling)। তবে বলে রাখি আপাতত এই সুবিধাটিকে দিল্লির এনসিআরের সাধারণ মানুষের জন্য আনা হয়েছে। এই মুহূর্তে যারা এয়ারটেল extreme fibre broadband পরিষেবা ব্যবহার করেন তারা এই সুবিধার লাভ ভোগ করতে পারবেন সাথে সাথে কয়েকটি স্মার্টফোনের দেওয়া হচ্ছে এই সুবিধা, অর্থাৎ প্রত্যেকটি স্মার্টফোনে আপাতত নেই এই সুবিধা। এর সাথে সাথে এয়ারটেল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে জানানো হয়েছে তারা বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে আরও উন্নত পরিষেবা দেওয়ার জন্য এই বিষয়ে কথাবার্তা বলছেন।

সব ধরনের ব্রড ব্যান্ড (broadband and hotspot) ও হটস্পটে যাতে এই সুবিধা দেওয়া যায় সেই নিয়ে কথাবার্তা চলছে বলেও জানিয়েছেন তারা। তবে আপাতত যে ফোন গুলিতে এর সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে সেগুলি হল নিম্নরূপ:—

যেসব মানুষের এই সুবিধার আনন্দ উঠাতে চান তাদের প্রথমে নিজের ফোনের সফটওয়্যারটিকে  দেখে নিতে হবে লেটেস্ট ভার্সনে আপডেট (latest version update) করা আছে কিনা। আপডেট করা না থাকলে অবশ্যই ফোনটির OS কে লেটেস্ট ভার্সনে আপডেট করে নিতে হবে। আর এরপর কেবলমাত্র ওয়াইফাই কলিং সুবিধাটিকে চালু করতে হবে। এরই সাথে ব্যবহারকারীদের VOLTE অর্থাৎ voice over long term evolution চালু করে নিতে হবে। যার ফলে এই সুবিধা লাভ আরো ভালোভাবে উঠাতে পারবেন।
আরো বলে রাখি এই পরিষেবাটি ব্যবহার করলে আপনার খরচ অনেক গুণ বেঁচে যাবে কারণ খুব কম ডাটার মাধ্যমে এই কলিং এর সুবিধার লাভ ওঠাতে পারবেন আপনি যেখানে 5 মিনিট কল করার ক্ষেত্রে আপনার খরচ করতে হবে মাত্র 5mb এর ও কম ডাটা। আর যদি কোনো কারণবশত ওয়াইফাই নেটওয়ার্ক না থাকে তাহলে কলটি চলে আসবে VOLTE তে, যার ফলে কোন ক্ষেত্রেই ব্যবহারকারীকে কোন অসুবিধার সম্মুখীন হতে হবে না। এরই সাথে বলে রাখি এই ওয়াইফাই কল টি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আপনাকে কোন প্রকার নতুন সিম কিনতে হবে না। আপনার পুরনো সিমেই এর লাভ উঠাতে পারবেন।

এর ব্যবহারকারীরা যেকোন জায়গা থেকে ফোন করতে বা মেসেজ করতেও পারবে। তার জন্য কেবলমাত্র ওয়াইফাই ব্যবহার করতে হবে।এরই সাথে বলে রাখি এই কলের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা সমস্ত কথায় ভালোভাবে শুনতে পাবেন কোন অসুবিধা হবে না আপনার কলিং এর ক্ষেত্রে, এরই সাথে এই যে সুবিধাটি রয়েছে সেটির লাভ উঠাতে আপনাকে কোন প্রকার অতিরিক্ত খরচ দিতে হবে না।

Related Articles

Close