চাপ বাড়ল মধ্যবিত্তদের হুরমুড়িয়ে বাড়লো রান্নার গ্যাসের দাম, পাশাপাশি দিন দিন চড়ছে পেট্রোল-ডিজেলের দামও

দিন দিন  পেট্রোল-ডিজেল সহ অন্যান্য জ্বালানির দাম বাড়ছে। এই অবস্থায় পাল্লা দিয়ে বাড়ছে  রান্নার গ্যাসেরও দাম । ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসের ১৫ তারিখ রান্নার গ্যাসের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার পর দেড় মাসের বেশি দাম একই থাকলেও ফেব্রুয়ারি মাসের ৪ তারিখ রান্নার গ্যাসের দাম  অনেকটাই বাড়ানো হল৷

 

ফেব্রুয়ারি মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত কলকাতায় ১৪.২ কেজি রান্নার গ্যাসের দাম  ছিল  সিলিন্ডার প্রতি ৭২০.৫০ টাকা।  ৪ তারিখ থেকে গ্যাসের দাম বেড়ে হল ৭৪৫.৫০ টাকা। অর্থাৎ এক ধাক্কায় সিলিন্ডার প্রতি  গ্যাসের দাম বাড়ল ২৫.৫০ টাকা। জেলা অনুযায়ী গ্যাসের দাম আলাদা হচ্ছে৷  চলুন দেখে নেওয়া যাক আপনার জেলায় কত পড়বে সিলিন্ডার প্রতি রান্নার গ্যাসের দাম।

১ ফেব্রুয়ারিতে  সংসদে কেন্দ্রীয় বাজেট অধিবেশন হয়। বাজেটের দিন  বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে ব্যবহৃত রান্নার গ্যাস সিলিন্ডারের দাম বাড়ানো হয়েছিল। তবে গার্হস্থ্য রান্নার গ্যাস সিলিন্ডারের দামের কোন পরিবর্তন করা হয়নি। তাই অনেকেই ভেবেছিলেন  ফেব্রুয়ারি মাসেও জানুয়ারি মাসের মতো রান্নার গ্যাস সিলিন্ডারের দাম একই থাকবে। কিন্তু বাজেট পেশ করার দুদিন পর সিলিন্ডার প্রতি রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ানো হলো।

ভারতে প্রতিনিয়ত জ্বালানির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় তার প্রভাব পড়ছে সাধারণের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের ক্ষেত্রে। দিন দিন দিন বেড়ে চলেছে জিনিসপত্রের দাম। দেখে নিন এক ঝলকে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় সিলিন্ডার প্রতি রান্নার গ্যাসের দাম

বাঁকুড়া : ৭৫৭.৫০ টাকা, বীরভূম : ৭৬৮.৫০ টাকা/ ৭৭৭ টাকা, আলিপুরদুয়ার : ৭৭২.৫০ টাকা, কোচবিহার : ৭৭২.৫০ টাকা, দক্ষিণ দিনাজপুর : ৮১৭.৫০ টাকা, দার্জিলিং : ৭৭২.৫০ টাকা, হুগলি : ৭৪৮.৫০ টাকা, হাওড়া : ৭৪৭ টাকা, জলপাইগুড়ি : ৭৭২.৫০ টাকা, ঝাড়গ্রাম : ৭৩৮ টাকা, কালিম্পং : ৮৭৫ টাকা, কলকাতা : ৭৪৫.৫০ টাকা, মালদা : ৮১৬.৫০ টাকা, মুর্শিদাবাদ : ৭৬৩ টাকা, নদীয়া : ৭৪৬ টাকা, উত্তর ২৪ পরগনা : ৭৪৫.৫০ টাকা, পশ্চিম বর্ধমান : ৭৫৯ টাকা, পশ্চিম মেদিনীপুর : ৭৩৮ টাকা, পূর্ব বর্ধমান : ৭৫৯ টাকা, পুরুলিয়া : ৭৭৪.৫০ টাকা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা : ৭৪৫.৫০ টাকা, উত্তর দিনাজপুর : ৮১৭.৫০ টাকা।

নির্বাচনের আগেই শুরু হচ্ছে সাফাই অভিযান! ১২ টি রাজ্যে ঢুকে রয়েছে রোহিঙ্গারা, তালিকা প্রকাশ কেন্দ্রের

বাজেটে প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনায় আরও এক কোটি দরিদ্র পরিবারকে রান্নার গ্যাস কানেকশন দেওয়ার ঘোষণা করেছেন। যদিও বিরোধীরা কটাক্ষ করেছেন,  সিলিন্ডারের দাম বাড়িয়ে নতুন কানেকশন দিয়ে কী লাভ হবে মানুষের! তাদের বক্তব্য, সাধারণ মানুষের সিলিণ্ডার কেনার ক্ষমতা নেই৷ “যদি সিলিন্ডার কেনার ক্ষমতা না থাকে তাহলে ওই কানেকশন নিয়ে লাভ কি হবে!”