একটা সময় এমনও গেছে যখন ভাত-রুটি খাওয়ার পয়সা ছিল না, তবে জীবন সংগ্রামে ভেঙ্গে পড়েননি

একের পর এক “সুপারহিট ছবি” করার পরও একটা সময় একেবারে বেকার ছিলেন সিরিয়ালের জনপ্রিয় অভিনেতা রনিত রায়, যাকে দর্শকেরা প্রধানত “কেডি পাঠক” নামে চিনে থাকেন।এ বিষয়ে একটা সাক্ষাৎকারে তিনি নিজের মতামত ও রেখেছিলেন যেখানে তিনি বলেছিলেন প্রতিটা নতুন চরিত্রের সঙ্গে তিনি খানিকটা করে নিজেকে গড়ে তোলেন একাধিক হিট ছবি দেওয়ার পরও তিনি নিজের জায়গা পাকা করতে পারেননি ইন্ডাস্ট্রিতে। তবে তিনি তার ধৈর্য হারাননি। এমনকি এই বক্তব্যে তুলে ধরেছেন তার জীবনের গল্পও যেখানে তিনি জানিয়েছিলেন তার এমনও দিন গেছে যেখানে তার কাছে ডাল রুটি খেয়ে বেঁচে থাকায় যেন প্রায় কঠিন হয়ে পড়েছিল, তবুও তিনি জীবনের সাথে লড়ায় করার হাল ছাড়েননি।

অপেক্ষা করে গিয়েছেন জীবনের ভাল সময় আসার, এমনকি যখন তার কাছে ছবি সুযোগ আসাও কমে যায় তখন তিনি সিরিয়ালের দিকে নিজের হাত বাড়ান। আর এখন বর্তমান যুগে OTT প্ল্যাটফর্ম অর্থাৎ ওয়েব সিরিজেও তিনি কাজ করছেন। অভিনেতা বলেন দ্বিতীয়বার সুযোগ হয় তো সবার আসে না, তবে তিনি ধৈর্য্য সহ দীর্ঘ প্রতীক্ষা করে দ্বিতীয় সুযোগ পেয়েছেন চেষ্টা করেছেন নিজেকে আরো একবার প্রমাণ করার।বলে রাখি এই বাঙালি অভিনেতা রনিত রায়ের সিনেমা জগতে অভিষেক ঘটেছিল 1992 সালের জনপ্রিয় হিন্দি সিনেমা “জান তেরে নাম”-এর মাধ্যমে।

তার অভিনীত ছবিগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- জান তেরে নাম, সৈনিক, বম্ব ব্লাস্ট, হালচাল, মেঘা, আর্মি, দানবীর, অগ্নি স্বাক্ষী, গ্ল্যামার গার্ল, হাম দিওয়ানা পেয়ার কা, খাতরন কী খিলারি, শেষ বংশধর, নিশান, দ্যাট গার্ল ইন ইয়েলো বুটস, মিডনাইট’স চিলড্রেন, স্টুডেন্ট অব দ্যা ইয়ার, শুট আউট এট ওয়াডালা, বস, আগলি, গুড্ডু, টু স্টেইটস, সাত কদম, কাবিল, সরকার 3, মেশিন ইত্যাদি৷ শুধু তাই নয় এরপর তিনি অসংখ্য তামিল, তেলুগু ,বাংলা সিনেমাতেও অভিনয় করেছেন এমনকি তার জনপ্রিয় টিভি ধারাবাহিক শো “আদালতে” কেডি পাঠক নামক চরিত্রে অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করেছেন তার পাশাপাশি তিনি বাংলাদেশের একাধিক ছবিতেও কাজ করেছেন।

বর্তমানে ভারতীয় ধারাবাহিকে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেতাদের মধ্যে তিনি তার নিজের নাম লিখিয়েছেন, তবে অভিনেতার একের পর এক সুপার হিট ছবি উপহার দেওয়ার পরও 6 মাস কোন কাজ না পেয়ে বসে ছিলেন। রনিত জানান “জান তেরে নাম” ছবিটি সুপার হিট হওয়ার পরও আচমকাই তিনি ছয় মাস কোন কাজ পাননি, সেই সময় প্রায় তিন বছর ধরে ছোটখাটো চরিত্রে অভিনয় করে গিয়েছেন।এমনকি প্রায় চার বছর তিনি বাড়িতে বসে ছিলেন আর সেই সময় তার কাছে একটা ছোটো গাড়ি ছিল তবে সেই গাড়িতে পেট্রল ভরানোর টাকা পর্যন্ত ছিল না তার কাছে।

 

তিনি বলেন প্রত্যেকেই কোন না কোনদিন এরকম আর্থিক সংকটের সম্মুখীন হয়ে থাকে তবে ভেঙ্গে পরিনি আর ভেঙে পড়ে নি বলেই এক সময়ে “উড়ান” আগলি- র মতো ছবিতে কাজ করে প্রশংসাও পেয়েছি। তিনি বলেন আমি সুপারিশ করে কাজ করতে বা চাইতে পারি না।যার জন্য আমাকে স্বাভাবিকভাবেই অন্যদের তুলনায় বেশি কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে তবে সে রকম ভাবে আমি আমার মানসিকতাকে প্রস্তুত করে রাখি। তবে এখন যখন আমি আমার ভক্ত এবং ফ্যানদের দেখি তখন মনে হয় আমি ভুল করিনি। এক সময় তিনি বলিউড সুপারস্টার আমির খানের বডিগার্ড হিসেবেও কাজ করেছেন। গত সেপ্টেম্বরের 9 তারিখ Hotstar OTT প্লাটফর্মে রিলিজ হয়েছে তার অভিনীত Hostage এর দ্বিতীয় পর্ব যেটি ইতিমধ্যে দর্শকদের বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে।