কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের আটক নিয়ে এবার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন দেশের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল

যবে থেকে কাশ্মীর থেকে অনুচ্ছেদ 370 কে বিলোপ করা হয়েছে তবে থেকেই পাকিস্তান ভারতের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে আছে। তারা অনবরত চেষ্টা করে যাচ্ছে কিভাবে ভারতকে এই বিষয় নিয়ে নিচু দেখানো যাবে। তবে এবার কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের আটক নিয়ে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন দেশের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। আজ শনিবার দিন দেশের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল বলেন, কাশ্মীরে যে সব নেতাদের আটক করা হয়েছে তাদের কে আইন মেনেই আটক করা হয়েছে।

আর কারো যদি এই বিষয় নিয়ে কোন প্রকার আপত্তি থাকে তারা আদালতে এর জন্য চ্যালেঞ্জ করতে পারেন। তিনি আরো বলেন এখনো পর্যন্ত কোনো নেতার বিরুদ্ধে কোনো ফৌজদারি অভিযোগ আনা হয়নি।তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন গণতন্ত্রের পরিবেশে ফেরা-না পর্যন্ত তারা আটকই অবস্থায় থাকবেন। দেশের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই তাদের আটক করা হয়েছে কারন এরা কোন প্রকার জমায়াত করলেই তার সুযোগ উঠাতে পারে জঙ্গিরা।

এইদিন কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে অজিত দোভাল বলেন যে উপত্যকায় এখন 92.5 শতকরা জায়গায় কোন প্রকার বিধিনিষেধ নেই।তবে শুধু তাই নয় জম্মু কাশ্মীরের 199 টি থানার মধ্যে মাত্র 10 টি থানায় বিধি-নিষেধ এখনো রয়েছে।তবে এখন সেখানে 100% অনলাইন টেলিফোন পরিষেবায় চালু রয়েছে। তবে উপত্যকায় সেনা অত্যাচার করছে বলে যে অভিযোগ উঠছে বারবার যার কোন প্রশ্নই নেই।কারণ সেনাদের একমাত্র মোতায়েন করা হয়েছে জঙ্গি দমন করার জন্য। তাছাড়া আইনশৃঙ্খলা উদ্ধার করার কাজ করছে আধাসেনা ও কাশ্মীর পুলিস।

শুধু তাই নয় এই দিন জাতীয় উপদেষ্টা অজিত দোভাল আরো বলেন যে জম্মু-কাশ্মীরের বেশিরভাগ জনগণ অনুচ্ছেদ 370 বিলোপ কে মেনে নিয়েছেন। আর এই বিষয় নিয়ে কোনো প্রকার সন্দেহ নেই, মানুষ এখন কর্মসংস্থান ও আর্থিক উন্নতির স্বপ্ন দেখছেন সেখানে। তবে শুধুমাত্র কিছু দুষ্কৃতী এখনো রয়েছে যারা এর বিরোধিতা করছেন। আমরা শুধুমাত্র পাকিস্তানের জঙ্গিদের হাত থেকে কাশ্মীরিদের বাঁচানোর চেষ্টা করছি আর সেই জন্য কিছু বিধি নিষেধ করা হয়েছে। তবে সেখানে পাকিস্তান অনবরত প্রচেষ্টা করে যাচ্ছে অশান্তি সৃষ্টি করার।