এবার একসুরে কেন্দ্র সরকারকে আক্রমণ রাজ্যের বর্তমান শাসকদল ও রাজ্যের প্রাক্তন শাসক দলের

যে কথা রাজ্যে বর্তমান শাসক দল তৃণমূল সরকার বলে আসছিল ঠিক সেই কথায় বলেই একই পথে হাঁটলো সিপিএমও। তাহলে এখন প্রশ্ন হল কোন কথায় এই দুই দল একসাথে সহমত দিল।তবে বলে রাখি রাজ্যের বর্তমান শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস বরাবর ব্যাংক থেকে ও এটিএম এর মাধ্যমে টাকা জালিয়াতির জন্য কেন্দ্র সরকারকে দায়ী করে তুলেছিলেন। এবার সেই কথায় রাজ্যের প্রাক্তন শাসকদলও বললো।

এই উভয় দলই জানাচ্ছে ব্যাংকের সাথে আধার কার্ডের সংযুক্তিকরণ এর ফলেই বর্তমান দিনে ব্যাঙ্ক জালিয়াতির ঘটনা ও এটিএম জালিয়াতির ঘটনা দিন দিন বেড়ে চলেছে। একথা মঙ্গলবার দিন বিধানসভায় নিজের বক্তব্য পেশ করবার সময় সুজন চক্রবর্তী বলেন রাজ্যজুড়ে প্রতিদিন জালিয়াতির ঘটনা প্রকাশ্যে আসছে যেখানে গ্রাহকদের একাউন্ট থেকে গায়েব হয়ে যাচ্ছে হাজার হাজার টাকা। আর এখানে তিনি দাবি করে বলেন যে আধারের সাথে’ ব্যাংকের সংযুক্তিকরণ এর ফলেই এই ঘটনা দিন দিন বেড়ে চলছে।

এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন ব্যাংকের সঙ্গে আধারের সংযুক্তকরণ এর ফলেই এই সমস্ত তথ্য হ্যাকারদের ব্যাংক একাউন্টের বিবরণ পেতে সাহায্য করছে।এ বিষয়ে তৃণমূল নেতা ফিরহাদ হাকিম বলেন মমতা ব্যানার্জি আগেই বলেছিলেন জালিয়তরা এসে নিয়ে যাবেন। তার সাথে কলকাতার মেয়র এদিন বলেন আধারের সঙ্গে প্যান ও অন্যান্য তথ্য সংযুক্তিকরণ এর ফলে দিন দিন এই জালিয়াতি ঘটনা প্রকাশ্যে আসছে। তবে বলে রাখি ইতিমধ্যে কলকাতায় 14 লক্ষ টাকার প্রতারণার অভিযোগ সামনে এসেছে এইভাবেই।

তাই স্বাভাবিকভাবেই একটা আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে যেখানে সকলেই চাইছেন তাদের টাকা যেন ব্যাংকের সুরক্ষিতভাবে থাকে, কিন্তু এইসব হ্যাকারদের নজর এড়িয়ে সেটা সম্ভব হবে কিনা তাই ভাবছেন সকলে।তবে এরকম এক প্রতারণার ঘটনা সামনে আসার পর ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করে দিয়েছে এ নিয়ে কলকাতা পুলিশ। নির্দিষ্ট কিছু এটিএম খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা দিল্লির বিভিন্ন এটিএম মেশিন থেকে তোলা টাকার অভিযোগ ওঠায় কলকাতা পুলিশের একটি বিশেষ দল গঠন করা হয়েছে তারা গিয়েছে সেখানে এ বিষয়ে তদন্ত করতে।দিল্লি পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করছেন তারা।

যেখানে তারা দেখতে পাচ্ছেন মুখে মাক্স পড়ে কিছু ব্যক্তি টাকা তুলছেন এই এটিএম গুলি থেকে, এই মুহূর্তে এসব ব্যক্তির খোঁজ চলছে। ঠিক গতবছর এরকম এক এটিএম প্রতারণার সময় সামনে এসেছিল রোমানিয়ার গ্যাং এর কথা। আর এবারও তাদের নামই মাথায় আসছে।তবে বলে রাখি আগেরবার পুলিশের হাত থেকে পালিয়ে বেঁচেছিল এই গ্যাং এর কয়েকজন সদস্য।তাই এখন পুলিশের তরফ থেকে মনে করা হচ্ছে এইসব গ্যাং এর যে সদস্যরা পালিয়ে বেঁচেছিল তারা এখন নতুন করে দল গঠন করেছে দেশের রাজধানী দিল্লিতে।ফলে আগেই এই সূত্রকে ধরেই তদন্ত শুরু করেছে ইতিমধ্যে গোয়েন্দারা।

Related Articles

Back to top button