৫০০০ মানুষের বসবাসের ন্যায় সমুদ্রের তলদেশে তৈরি হচ্ছে শহর,থাকবে হোটেল মলের মতো একাধিক সুবিধা

এ যেন মনে হয় পৃথিবীর মধ্যে অন্য এক পৃথিবী। এমন একটি স্বপ্নের শহরে তৈরি করার বাসনা প্রায় প্রত্যেকের থাকে। কিন্তু সে স্বপ্ন সত্যি হয় ক’জনের?? তবে এবার একটি স্বপ্নপুরী ধারনাকে বাস্তব করেছে একটি দেশ যেখানে ৫ হাজার মানুষ অনায়াসে বিলাসবহুল জীবন উপভোগ করতে পারবে একসাথে। পৃথিবীর মধ্যেও এ যেন এক স্বপ্নপুরী। এই স্বপ্নপুরীর মধ্যে রয়েছে থাকার জন্য ঘর, কাজের জন্য অফিস, থিয়েটার থেকে শুরু করে শপিংমল সবকিছুই। এই বিলাস বহুল অতিকাঙ্কিত শহরটি তৈরি হতে চলেছে একেবারে জলের তলায়। মানুষের অতিরঞ্জিত স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার জন্য এ যেন এক অভিনব প্রচেষ্টা।

সিটি আয়তনে ওশান স্পাইরাল প্রস্তুত চারটি ফুটবল মাঠের সমান হবে। এই শহরে থাকবে ছিমছাম বাড়িঘর, যোগাযোগ মাধ্যম, ঝা চকচকে মল এবং ঘুরতে যাবার জায়গা। একেবারে পৃথিবীর মধ্যেই নিখুঁত এবং স্বপ্নের মত সুন্দর হবে এই শহর। কিছু বিষয়ের উপর কড়া নজর দেওয়া হয়েছে এই শহরে যেমন মানুষের বসবাসের জন্য বিলাসবহুল ফ্ল্যাট, থাকার জন্য হোটেল, ব্যবসা করার জন্য অফিস এবং পরিবহনের সমস্ত উপায়। এই শহরে অক্সিজেনের কোন অভাব নেই। পৃথিবীর সাহায্যে ছাড়াই এই শহরের প্রত্যেক মানুষ পাবেন ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ খাবার। পৃথিবীর মতোই সমস্ত সুযোগ-সুবিধা নিমেষে পাওয়ার ফলে এই শহরের গ্রহণযোগ্যতা আরো বেশি বেড়ে যাবে মানুষের কাছে।

এবার এই শহরের কোন বাসিন্দা যদি পৃথিবীতে আসতে চাই তাহলে কি হবে? সেই প্ল্যানে যুক্ত রয়েছে এই ফিউচার আন্ডারওয়াটার সিটির ধারণাতে। এখানে বলা রয়েছে পৃথিবী আর আন্ডার ওয়াটার সিটি যেন দুটি পাশাপাশি শহর হবে, নিমিষে এই শহরের বাসিন্দা পৌঁছে যাবেন পৃথিবীর বুকে। এমন একটি অতি বাস্তব স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে চলেছেন জাপানের এক বিখ্যাত বহুজাতিক নির্মাণ এবং স্থাপত্য কোম্পানি। তারা বলেছেন, যেখানে এই সম্পূর্ণ সমুদ্রের নিচে থাকা শহরটিতে বসবাস করবেন কয়েক হাজার মানুষ এবং পৃথিবীর সমস্ত সুযোগ-সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন এই শহরে।

আজ পৃথিবীর মানুষ পৃথিবীর প্রত্যেক কোনায় পৌঁছে গেছে। দ্বীপপুঞ্জ হোক অথবা আন্টার্টিকা, পর্বতের শিখর হোক অথবা দুর্গম কোন বালুবাসীর দেশ, সব ক্ষেত্রেই মানুষ তার পায়ের ছাপ ফেলেছে স্বগর্বে। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা এখন চাইছে আরো বড় কিছু করে দেখাতে। তারা চাইছে সমুদ্রের রূপকথার রাজ্য তৈরি করতে আর এই স্বপ্নকে আক্ষরিক অর্থে অতল সমুদ্র সত্তে ডুব দিতে এসেছে জাপানের বহুজাতিক স্থাপত্য কোম্পানি সিমিজু কর্পোরেশন। এই কোম্পানি প্রথম এমন একটি প্ল্যান নিয়ে এসেছে যেখানে জলের নিচে মানুষ স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারবে যা ভবিষ্যতে একটি সম্ভাবনাময়ী পরিকল্পনা হতে পারে। এটি আরো একবার আমাদের ছোটবেলার রূপকথার স্বপ্নকে আমাদের চোখের সামনে নিয়ে আসবে।