একটা সভা করলেই হত, কী দরকার ছিল অভিষেকের কেন্দ্রে গিয়ে খোঁচানোরঃ সৌগত রায়

কোন দরকার ছিল না অভিষেকের কেন্দ্রে গিয়ে খোঁচানোর। জেপি নাড্ডার কনভয় হামলা প্রসঙ্গে বললেন সৌগত রায়। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা আজ ডায়মন্ড হারবার গেছিলেন দলীয় কর্মসূচির জন্য৷ তখন তাকে আক্রমণ করা হয় বলে জানিয়েছেন৷ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ের কাছে প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, কী দরকার ছিল অভিষেকের কেন্দ্রে গিয়ে খোঁচা দেওয়ার। একটা বড় মিটিং করলেই হত। অনেক সময় মানুষ স্বতঃস্ফূর্ত প্রতিবাদ করে থাকে।

বিজেপি অভিযোগ করে বলছে রাস্তায় পুলিশের তরফ থেকে তেমন কোনো নিরাপত্তা ছিল না। তিনি জানান, দেশের প্রধানমন্ত্রী অথবা রাষ্ট্রপতি নন জেপি নাড্ডা যে সারা রাস্তায় পুলিশ দাঁড়িয়ে থাকবে। তাই সব জায়গায় পুলিশ ছিল না। সেইসাথে তিনি জানান হামলা হওয়ার ঘটনার জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করছেন৷

কেন্দ্রীয় সরকার এই আক্রমণকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছে- অমিত শাহ

ঘটনার পর রাজ্য পুলিশের তরফ থেকে ফেসবুকে একটি পোস্ট করে বলা হয় বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা সভাস্থলে নিরাপদে পৌঁছেছে। গাড়ির পিছনে কিছু লোক পাথর ছুঁড়েছে তার আঘাত লাগে নি৷ পুরো ঘটনার তদন্ত করে দেখা হবে৷ অমিত শাহ বলেছেন শান্তিকামী বাংলার মানুষ এই ঘটনা ভালো চোখে দেখবেন না৷ এবং কেন্দ্র রাজ্য সংঘাত যে আরও এক ধাপ এগোল তাও বোঝা যাচ্ছে৷

 

অন্যদিকে এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ কেও প্রতিবাদ করতে দেখা যায় যেখানে তিনি বলেছেন, ‘তৃণমূল শাসনে বাংলায় অত্যাচার, অরাজকতা আর অন্ধকারের যুগ নেমে এসেছে। তৃণমূল রাজে পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে যেভাবে রাজনৈতিক হিংসা চরম সীমায় পৌঁছে ছে, সেটা গণতান্ত্রিক মূল্যে বিশ্বাস করা মানুষের জন্য খুবই দুঃখজনক আর চিন্তাজনক।”