হাতের জাদুতে গ্রাম বাংলার ৮২ বছরের এক বৃদ্ধা হয়ে উঠলেন ইউটিউব স্টার

‘ভারত আবার জগত সভায় শ্রেষ্ঠ আসন লবে’ – অতুলপ্রসাদ সেনের লেখা এই গানের লাইনটি যে একবারে সত্য তা আবারও প্রমাণিত হল। বাংলার এক প্রত্যন্ত গ্রামের মহিলার রান্নার জয়জয়াকার ধ্বনি উঠেছে পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তে। বীরভূমের এই ঠাকুমার হাতের জাদুতে নানা সবজি পরিণত হতে পারে সুস্বাদু পদে। ঠাকুমা আজ ইউটিউব স্টার। রান্নার দিক থেকেই তিনি টেক্কা দিতে পারেন যে কোনো বাঙালি রাঁধুনিদের। চলুন আজ এই ঠাকুরমার কথাই একটু জেনে নেওয়া যাক।

 

আমাদের বর্তমান যুগ হল প্রযুক্তির যুগ। এই প্রযুক্তির হাত ধরে মানুষ আজ পৌঁছে গেছে চাঁদে। নানা গ্রহ-নক্ষত্রকে আবিষ্কার করতে পেরেছে। এই প্রযুক্তির এখন বড় আবিষ্কার হল ইন্টারনেট। এখন মানুষ সম্পূর্ণই ইন্টারনেটের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। পড়াশুনা, রান্নাবান্না সবকিছুই এখন আমরা ইন্টারনেটে দেখে নিই। আজ এই ইন্টারনেটের ওপর নির্ভর করেই পশ্চিমবাংলার বীরভূমের ৮২ বছরের একজন বৃদ্ধা মহিলা ইউটিউব স্টার হয়ে উঠেছেন।

বীরভূমের এই মহিলার নাম পুষ্পরানি সরকার। বীরভূমের ইলামবাজারের বনভিলা গ্রামের বাসিন্দা তিনি। বরাবরই হাতের রান্না খুবই সুস্বাদু। তাই তাঁর নাতি ঠিক করেছিলেন যে তাঁর রান্নাকে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের কাছে পৌঁছে দেবেন। সেই লক্ষ্যে ২০১৭ সালে ইউটিউবের একটি চ্যানেল খোলেন চ্যানেলটির নাম দেন ‘বিল ফুড’। গত ৪ বছরে পুষ্প রানী দেবী বানিয়েছেন কুমড়ো ফুলের বড়া থেকে শুরু করে কচুর শাক,পুঁই শাক, থানকুনি পাতা দিয়ে তেল কই, খাসির মাংস, মুরগির মাংস এবং নানা রকম মাছের একাধিক পদ।

আর এগুলোর ভিডিও আপলোড করেন ইউটিউবের চ্যানেলে। বিশ্বের প্রায় ১৫০ দেশে তাঁর রান্না পৌঁছে গেছে। কাছের দেশ বাংলাদেশ ছাড়াও তাঁর বাগানে তৈরি নানা শাকসবজির রান্নার সুস্বাদে মজেছেন চিন, আফ্রিকা, তুরস্ক, ইংল্যান্ড বা আমেরিকার মত বড় বড় শহরের বহু বাসিন্দারা। ইউটিউবে এখন তাঁর ১.৫ মিলিয়ন ফলোয়ারর্স রয়েছে। বছরে ইনকাম তাঁর ৮ থেকে ১০ লক্ষ টাকা।