চাকরির বাজারে মন্দা, ৭১ লক্ষের বেশি অ্যাকাউন্ট বন্ধ করল ইপিএফও

শোনা যাচ্ছিল অনেকদিন আগে থেকেই। অবশেষে সরকারি ভাবে অবসরকালীন অর্থ সংস্থা প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন EPFO -কে বৈধতা দেওয়া হল৷ সূত্রের খবর, করোনা আবহে ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত ৭১.০১ লক্ষ কর্মচারীর প্রভিডেন্ট ফান্ড অ্যাকাউন্ট পুরোপুরি  বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে দেশ জুড়ে৷ আগের বছর এর থেকেও এই বছর সংখ্যাটা প্রায় ৫ লক্ষেরও বেশি। করোনা মহামারীতে বেকারত্ব আর তীব্র মন্দার জেরেই এই সঙ্কটাবস্থা বলে মনে করা হচ্ছে৷

২০২০ সালের এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট  ৭১ লক্ষ ১ হাজার ৯২৯ EPFO অ্যাকাউন্ট বন্ধ হয়ে গেছে । সম্প্রতি এই তথ্য প্রকাশ্যে আনেন শ্রমমন্ত্রী সন্তোষ গাঙ্গওয়া। লোকসভায় আলোচনা চলাকালীন তিনি  এই তথ্য প্রকাশ করেন। ২০১৯ সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ছিল ৬৬ লক্ষ ৬৬ হাজার ৫৬৩।

এই প্রথমবার যখন ডিমেতে ভরা বাসাতে বিজ্ঞানীদের মিলল ডাইনোসরের ভ্রুণ, রয়েছে বাচ্চাও! সকলেই হতবাক

২০২০ তে এপ্রিল-ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত  আংশিক প্রত্যাহারকারী EPFO অ্যাকাউন্টের সংখ্যা বেড়েছে ১ কোটি ২৭ লক্ষ ৭২ হাজার ১২০। ২০১৯ এ এই সংখ্যা ছিল ৫৪ লক্ষ ৪২ হাজার ৮৮৪। ২০২০ সালের  এপ্রিল-ডিসেম্বরের মধ্যে  ইপিএফ অ্যাকাউন্ট থেকে মোট ৭৩,৪৯৮ কোটি টাকা তোলা হয়েছে।  ২০১৯ সালে এই  পরিমাণ ছিল  ৫৫,১২৫ কোটি টাকা । এই তথ্য সামনে আসতেই তীব্র চাপানউতোর শুরু হয়েছে সমাজের বিভিন্ন মহলে। দেশের কর্মসংস্থানের ভবিষ্যত নিয়েও শুরু হয়েছে চর্চা।