চার বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা, অভিযুক্তকে নগ্ন করে রাস্তায় ঘোরালো স্থানীয়রা…

না এখনো শিক্ষা হয়নি! দিল্লি, তেলেঙ্গানার ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরও শিক্ষা নেয়নি কিছু দেশের মানুষ। সপ্তাহ ঘোরার আগেই আরো একবার প্রকাশ্যে এল এক ধর্ষণের ঘটনা। এবার নির্যাতিতা হল বছর চারেকের এক শিশু, মহারাষ্ট্রে প্রায় 35 বছর বয়সী এক যুবক এই ফুটফুটে শিশু কন্যাকে ধর্ষণের চেষ্টা করলো। তবে এক্ষেত্রে বিচারে আশায় বসে ছিল না নির্যাতিতার পরিবারসহ স্থানীয়রা। এরকম এক বিকৃতমনস্ক যুবককে নগ্ন করে রাস্তায় ঘোরালেন সেখানকার স্থানীয়রা।

হায়দ্রাবাদের পশু চিকিৎসক কে ধর্ষণ ও খুনের ঘটনায় দেশজুড়ে বিক্ষোভের আগুণ জ্বলছে।গোহাটি থেকে কলকাতা, ভোপাল থেকে মুম্বাই প্রতিটি শহরে অপরাধীদের কঠোর শাস্তির দাবিতে একাধিক মিছিল করা হচ্ছে। এই প্রতিবাদ মিছিলে যোগ দিয়েছে দেশের সব বয়সেরই মানুষেরা অর্থাৎ 8 থেকে 80 বছর মানুষেরা পর্যন্ত যোগদান দিয়েছে এই মিছিলে। এই ঘটনার জেরে উত্তপ্ত রয়েছে সাংসদ ও, ইতিমধ্যে রীতিমতো উত্তপ্ত হয়েছে সংসদ

 

সাধারণ মানুষ থেকে অভিযুক্তের মা সবাই চেয়েছেন এই দোষীদের কঠিনতম শাস্তির দাবি। এরকম এক উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে প্রকাশ্যে এলো বছর চারেকের দুধের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করার ঘটনা। এই বছর চারেকের দুধের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল এক যুবক ঘটনাটি ঘটেছে মহারাষ্ট্রের নাগপুরের পারদি এলাকায়। পুলিশ সূত্রে জানতে পারা গেছে এই কাণ্ডে জড়িত অভিযুক্তের নাম জওহর বৈদ্য। অভিযুক্ত ব্যক্তি নাগপুরের একটি কো-অপারেটিভ সোসাইটি ব্যাংকের গ্যাস কালেকশন এজেন্ট হিসেবে কাজ করেন।

গত রবিবার দিন সন্ধ্যেবেলায় শিশুটিকে একা দেখতে পেয়ে ঘরের ভিতরে ঢুকে পড়েন এই ব্যাক্তি, তারপর শিশুটিকে যৌন হেনস্তার চেষ্টা করে সে। আর ঠিক সেই মুহূর্তেই বাড়ি ফেরেন শিশুর মা, চোখের সামনে এমন এক দৃশ্য সঙ্গে সঙ্গে চিৎকার করে ওঠেন তিনি। তার গলা শুনে ছুটে আসেন সেখানকার প্রতিবেশীরা। খুব শীঘ্রই খবর পৌঁছে যায় সেখানে স্থানীয়দের কাছেও সকলেই এসে ঘিরে ধরে এই ব্যক্তিকে তারপর শুরু করে মারধর। এরকম এক বছর চারেকের শিশুকে ধর্ষণ করার চেষ্টার অপরাধে সম্পূর্ণ নগ্ন করে তাকে গোটা এলাকায় ঘোরান সেখানকার প্রতিবেশীরা।

পরে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। ইতিমধ্যে এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ভারতীয় দন্ডবিধির ধারা এবং পকসো আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে। সেখানকার স্থানীয়রা জানান অভিযুক্তকে এইজন্যই নগ্ন করে ঘোরানো হয়েছে যাতে দ্বিতীয়বার কোন শিশু বা মহিলাকে দেখে এমন কাজ করার কল্পনাও যাতে মাথায় না আসে।

Related Articles

Close