লকডাউনে সাড়ে ৩ কোটি মানুষ কর্মহীন! জবাব চাইছে দেশের মানুষ, মোদীকে কটাক্ষ অমিত মিত্রের

অতিমারির আবহে গোটা দেশ সার্বিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে আছে ।অর্থনৈতিক দিক থেকে দেশে চরম বিশৃঙ্খলা চলছে । একদিকে যেমন বেকারত্ব বাড়ছে অন্যদিকে সরকারি- বেসরকারি সংস্থা প্রতিষ্ঠান আর্থিক দিক থেকে কর্মীরা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। করোনাকালীন পরিস্থিতি শুরু হওয়ার থেকেই দেশে কখনো পরিযায়ী শ্রমিক, কখনো চিকিৎসা-বিভ্রাট, আবার কখনো ভ্যাক্সিনেশন জনিত সমস্যার কারণে কেন্দ্র সরকার কে অসন্তোষের মুখে পড়তে হয়ছে।

এইসবের পর সম্প্রতি দেশে বেকারত্ব বৃদ্ধির কারণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। প্রায় দুবছর ধরেই দেশের জনসাধারণের সার্বিক সমস্যার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে।সম্প্রতিককালে দেশের সবথেকে বড় সমস্যা হল বেকারত্ব। দীর্ঘদিন ধরে করোনা আবহে দেশের অর্থনৈতিক পরিকাঠামো দুর্বল হয়ে পড়ছে । এর ফলে লকডাউনের জন্য ধাপে ধাপে দেশের বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষ কাজ হারাচ্ছেন । সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে পরিযায়ী শ্রমিকরা। ভিন রাজ্যে লকডাউন এর জেরে কাজ হারিয়ে বাড়ি ফিরতে হচ্ছে তাঁদের ।

কিন্তু কাজ হারিয়ে নিজ রাজ্যে এসেও ঠিকমতো কাজের সন্ধান পাচ্ছেন না পরিযায়ী শ্রমিকরা। আর্থিক সংকটের মধ্যে দিয়ে যেতে হচ্ছে এই শ্রেণীর মানুষদের । ফলে দেশে বেকারত্বের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে।দীর্ঘদিন ধরেই দেশের সার্বিক সমস্যার জন্য কেন্দ্র সরকার কে দায়ী করে আসা হচ্ছে। দেশের কোথাও চিকিৎসা-বিভ্রাটে হচ্ছে আবার কথাও ঠিকমত ভ্যাক্সিনেশন হচ্ছে না। এইজন্য অসন্তোষ সাধারণ মানুষের মনের মধ্যে থেকেই যাচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে অসন্তোষের আরেকটি মূল কারণ হল বেকারত্ব।

এই পরিস্থিতিতে বাংলার অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র সরাসরি কেন্দ্রকে কটাক্ষ করে বলেছেন, “দেশের এই চরম বিপর্যয়ের সময় কেন্দ্র কিছু ভাবছেন না “, দেশে যে রকম ভাবেই হু হু করে বেকারত্ব বাড়ছে তাতে অর্থনৈতিক পরিকাঠামো তলানিতে এসে ঠেকেছে। এমতো পরিস্থিতির কেন্দ্রীয় সরকার যদি উপযুক্ত ব্যবস্থা না নেয় তাহলে সাধারণ মানুষ আর বিপাকে পড়বে। রাজ্যের অর্থমন্ত্রী আরও দাবি করেছেন দেশের জনগণকে অর্থনৈতিক উত্থানের বিষয়ে মিথ্যা কথা বলা হচ্ছে। কেন্দ্র সরকারের এই বিষয়টি ভেবে দেখা উচিত।এই দিন রবিবার সকালে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ওপর অসন্তোষ উগলে দেন।তাঁর কথা মত “২০২১ সালে আগস্ট মাস পর্যন্ত হিসাব মতো প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষ কর্মহীন হয়েছে । বর্তমান সময়ে মানুষের কোন আয় নেই, আর চাকরিও নেই । এই পরিস্থিতিতে দেশের যা অবস্থা তাতে ভবিষ্যতে তাদের কোনো আয় হবে সেরকম কোনো আশা করা যাচ্ছে না । এমন পরিস্থিতিতে কেন্দ্র দাবি করছে অর্থনৈতিক পরিকাঠামো নাকি উন্নতি হচ্ছে !! কেন্দ্র কি আমাদের দেশের এই কর্মহীন সাড়ে তিন কোটি মানুষকে দেখতে পাচ্ছেন না !!? প্রধানমন্ত্রীর কাছে এই প্রশ্নের উত্তর চায় গোটা দেশ। “