ইয়াসের স্মৃতি উসকে ধেয়ে আসছে গুলাব! ভাসতে পারে বাংলা, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা

আগের বছর বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় ‘আমফান’ দিয়ে শুরু হয়েছিল। এরপর পরপর এসেছে ঘূর্ণিঝড়। সাম্প্রতিককালে ‘ইয়াস’ নামক ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে উপকূলবর্তী এলাকায় এবং দক্ষিণবঙ্গের উপকূলীয় জেলাগুলোতে। করোনাকালীন পরিস্থিতিতে একের পর এক ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বিপর্যস্ত জনজীবন। বর্তমানে আগের ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের স্মৃতি মনে পড়াচ্ছে ‘গুলাব’ । উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে মায়ানমারের কাছে উদ্বুদ্ধ হওয়া এই ঘূর্ণিঝড়টি ক্রমশই শক্তি বাড়াচ্ছে। আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই কলকাতা এবং তার সংলগ্ন এলাকার শুরু হয়েছে হালকা ঝড়ো হাওয়া, কোথাও বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি।

অন্যদিনের মত অস্বস্তিকর আবহাওয়া আজ নেই। তবে থম মেরে আছে আকাশ। আবহাওয়া দপ্তরের সূত্রে পাওয়া খবরে মঙ্গলবার উড়িষ্যা উপকূলে আছড়ে পড়তে চলেছে ঘূর্ণিঝড় গুলাব।ঘূর্ণিঝড়ের বর্তমান অভিমুখ বাংলার দিকে।আবহাওয়া দপ্তরের থেকে বলা হচ্ছে মঙ্গলবার সকাল থেকে মেঘলা আকাশ এবং কোথাও হালকা থেকে মাঝারি কোথাও ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী ২৪ঘন্টা আকাশ মেঘলাই থাকবে। এছাড়া বেশ কিছু জায়গায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে । এইদিন সর্বোচ্চ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকতে পারে ৩০ ও ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তবে এই কদিন উপকূলবর্তী এলাকায় মৎস্যজীবীদের সমুদ্র যেতে নিষেধ করা হচ্ছে। বঙ্গোপসাগরের প্রতি ঘণ্টায় ৪৫ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে। আপাতত ২৯ শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মৎস্যজীবীদের সমুদ্র যেতে নিষেধ করা হচ্ছে। তবে এই দিন দক্ষিণবঙ্গে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। বুধবার পর্যন্ত এই বৃষ্টি চলবে বলে মনে করা হচ্ছে। দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের বেশ কিছু জায়গায় অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে ।

Advertisements

এছাড়া হাওড়া, হুগলি, ঝাড়গ্রাম ,উত্তর ২৪ পরগনার বেশ কিছু এলাকাতেও বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি হতে পারে। তবে পুরুলিয়া ,বাঁকুড়া, পূর্ব বর্ধমান, পশ্চিম বর্ধমান ,নদিয়া, বীরভূম ,মুর্শিদাবাদে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই ।এক্ষেত্রে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে । এছাড়া বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত বেশ কিছু জেলাতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে । উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা ,পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর,হাওড়া ,হুগলি ,ঝাড়গ্রাম ,বাঁকুড়া , পুরুলিয়ার বেশ কিছু এলাকায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে । বৃহস্পতিবার পর্যন্ত হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূম ,মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, জেলায়।

Advertisements

তবে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে আগে থেকেই সতর্কতা জারি করা হচ্ছে । এই কদিন টানা প্রবল বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত হতে পারে । অতি বর্ষণে নদীগুলি প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পুরসভার নিচু এলাকা গুলি প্লাবিত হতে পারে । একদিন বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাত এর জন্য সাধারণ মানুষকে ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে। কারণ এর আগে বজ্রবিদ্যুৎ এ জেলায় বেশ কিছু মানুষের মৃত্যু ঘটেছে। এছাড়া কাঁচা রাস্তার ক্ষতি হবার সম্ভাবনা প্রবল ।

অন্যদিকে জমির ফসলের ক্ষতি হবে বলে মনে করা হচ্ছে। সমস্ত জায়গার ট্রাফিক সিস্টেম খতিয়ে দেখা হচ্ছে । এছাড়াও আবহাওয়া দপ্তর থেকে পুরনো মাটির বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে আসতে বলা হচ্ছে সাধারন মানুষকে। উপকূলবর্তী এলাকা থেকে পর্যটকদের সরিয়ে নেয়া হয়েছে আগেই। সব মিলিয়ে গুলাবের আগমনের আগে সব রকম প্রস্তুতি নিয়ে সতর্ক থাকছে বাংলা।