খুলবে কর্মসংস্থানের দরজা, চীনের সাথে সম্পর্ক মিটিয়ে ভারতে আসতে চলেছে 24 টি স্মার্টফোন কোম্পানি…

আজ গোটা বিশ্ব জুড়ে করোনা যে মহামারীর আকার ধারণ করেছে তার পেছনে রয়েছে যে চীন, তা সকল দেশেই এখন জানতে পেরে গেছে। বিশ্বের সকল দেশেই এখন চীনের ওপর ক্ষিপ্ত রয়েছে যার দরুন তারা চীনকে শায়েস্তা করতে একের পর এক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। আর ইতিমধ্যে চীনকে আরো এক প্রকার বড়ো ঝাটকা দিল ভারত, কারণ স্মার্টফোন বানানো 24 টি কোম্পানি এবার চীন ছেড়ে ভারতে তাদের প্রোডাকশন ইউনিট তৈরি করতে চাইছে। তবে এই কোম্পানিগুলিকে যে চীন ছাড়া করতে ভারতের রণনীতি কাজে লেগেছে তা বলা যেতে পারে।

এক্ষেত্রে বলে রাখি স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স থেকে শুরু করে অ্যাপেল ফোনের বিভিন্ন কম্পোনেন্ট বানানো কোম্পানিগুলি এখন ভারতে বিনিয়োগ করার ইচ্ছে প্রকাশ করেছে। অনেক হয়তো এ কথা জানেন না যে ভারত বিশ্বের এখনো দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল নির্মাতা দেশ। গোটা ভারতে এখনো পর্যন্ত 300 টি মোবাইল ম্যানুফ্যাকচারিং ইউনিট সক্রিয় রয়েছে। তাছাড়া এবার কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে মার্চ মাসে ইলেক্ট্রনিকস ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টরের জন্য বড় ঘোষণা করা হয়েছিল। যার ফলে এখন চীন থেকে এই 24 টি মোবাইল কোম্পানি ভারতে কারখানা গড়ে তোলার ইচ্ছে প্রকাশ করেছে।

IT মন্ত্রালয় অনুযায়ী এই কোম্পানিগুলো ভারতে প্রায় 1.5 বিলিয়ন ডলার যা ভারতীয় মুদ্রায় 11 হাজার 200 কোটি টাকা বিনিয়োগ করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। এক্ষেত্রে স্যামসাং ছাড়াও ফক্সকন, ব্রিস্টন পেগাট্রনের মতো মোবাইল কোম্পানিগুলো ভারতে কারখানা গড়ে তুলতে চাইছে। এক্ষেত্রে আমেরিকা এবং চীনের মধ্যে যে বাণিজ্যিক সমস্যা দেখা দিয়েছে তার লাভ যেমন উঠিয়েছে ভারত ঠিক সেরকম ভারত থেকে বেশি লাভ উঠিয়েছে ভিয়েতনাম। চীন ছেড়ে যাওয়া কোম্পানিগুলি কম্বোডিয়া, মায়ানমার, বাংলাদেশ আর থাইল্যান্ডের মতো দেশে বড়োসড়ো বিনিয়োগ করেছে।

আর একথা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের একটি সমীক্ষা দ্বারা প্রকাশ্যে এসেছে। তবে এখানেই শেষ নয় এর পাশাপাশি ভারত সরকার অটোমোবাইল টেক্সটাইল আর ফুড প্রসেসিং সেক্টরে কাজ করার জন্য কোম্পানিগুলিকে ম্যানুফেকচারিং ইউনিট গড়ে তোলারও প্রস্তাব দিতে পারে এমনটাই জানা যাচ্ছে।প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানা যাচ্ছে সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে অধিক সংখ্যক কোম্পানিগুলোকে ভারতের দিকে আকর্ষিত করার জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো গুলিকে দিন দিন আরও জোর দেওয়া।