এক কিলোমিটার পায়ে হেঁটে মুকেশ আম্বানি এনাকেই দিতে গিয়েছিলেন মেয়ের প্রথম বিয়ের কার্ড আর সাথে দিয়েছিলেন..

২০১৮ তে এমন অনেক ঘটনা ঘটেছে যে গুলো মনে রাখার মত। এরই মধ্যে একটা হল দেশের সবথেকে ধনী উদ্যোগপতি মেয়ে ‘ ঈশা আম্বানির’ বিয়ে। ২০১৮ ই ১২ ডিসেম্বর মুকেশ আম্বানির কন্যা ইশা আম্বানির সঙ্গে পিরামিল ইন্ডাস্ট্রির মালিক অজয় পিরামিলের সঙ্গে তার বিয়ে হয়ে যায় । এই বিয়েতে মুকেশ আম্বানি দেশ-বিদেশ থেকে নানান অতিথিদের আমন্ত্রণ দিয়েছিলেন। এটা বললে কম হবে না যে বিশ্বের এমন ব্যক্তি খুব কমই হবে যারা ইশা আম্বানি বিয়েতে হওয়া কার্যক্রম সম্বন্ধে অজ্ঞেন থাকবে।শুধু ভালো বিজনেস ম্যান রূপে নয় মুকেশ আম্বানি পরোপকারীর জন্যও পরিচিত।

মুকেশ আম্বানি তার একমাত্র কন্যার বিয়েতে ভারতের অনেক নামকরা ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন , তেমনি তিনি অসহায় ব্যক্তিদের ও সাহায্য করলেন, এমনকি তাদের খাবারও খাওয়ালেন এবং তাদের দরকারি সমস্ত জিনিস ও তাদের দিলেন। ভারতীয় পরম্পরায় তিনি ভারতে তার একমাত্র কন্যার বিয়ে দিয়েছিলেন। আমরা আপনাদের এমন একটি বিষয় জানাবো সেটা হয়তো আপনারা শোনেননি এর আগে।মুকেশ আম্বানি তার কন্যার বিয়ের প্রথম কার্ড ১ কিলোমিটার পথ চলে এমন একটি জায়গায় দিয়েছিলেন, যেটা শুনে আপনারা অবশ্যই গর্ব বোধ করবেন। মুকেশ আম্বানি যতই ব্যস্ত থাকুক না কেনো , এ কথা সবাই জানে যে তিনি অত্যন্ত ধার্মিক প্রকৃতির ব্যক্তি। এর আগেও হয়তো আপনারা মুকেশ আম্বানির সম্বন্ধে বিভিন্ন খবর শুনেছেন।

আপনাদের মনে একথা অবশ্যই আসবে , যে ব্যক্তি নিজের টাকার জোরে সমস্ত বিশ্বে নাম কামিয়েছেন সেই ব্যক্তি কেনই বা ১ কিলোমিটার পথ হেঁটে কাড দিতে যাবে? এবং তিনি কার্ড দিতে গেছিলেনই বা কোথায়?

তাহলে আপনাদের জানিয়ে দিচ্ছে মুকেশ আম্বানি তার কন্যার প্রথম কার্ড টি উত্তরাখণ্ডের কেদারনাথ এবং বদ্রিনাথে দিতে গিয়েছিলেন এছাড়াও তিনি সেখানে ৫১ লক্ষ টাকার দান ও দিয়েছিলেন। হেলিকপ্টার থেকে নেমে মুকেশ আম্বানি প্রায় ১ কিলোমিটার পথ হেঁটে বিয়ের কার্ডটি সেখানে দিতে গিয়েছিলেন।