দেশনতুন খবরবিশেষভারতীয় সেনা

70 কিলোমিটার দূর থেকেও শত্রু পক্ষের ওপর আঘাত হানতে সক্ষম ভারতের এই নতুন মিসাইল সিস্টেম…

অবশেষে দীর্ঘ দিনের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ভারতের হাতে আসতে চলেছে অত্যাধুনিক মিডিয়াম রেঞ্জ সারফেস টু এয়ার মিসাইল সিস্টেম বা MRSAM।এই সিস্টেমের মাধ্যমে প্রায় 70 কিলোমিটার দূরে থাকা ফাইটার জেটকেও নামিয়ে আনা সম্ভব। এমনকি শত্রুপক্ষের ব্যালিস্টিক মিসাইল, ফাইটার জেট কিংবা অ্যাটাক হেলিকপ্টারকেও মাঝ আকাশ থেকেও নামিয়ে আনতে সক্ষম এই সিস্টেমটির মাধ্যমে। DRDO ইজরায়েলর অ্যারোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজ সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে এই সিস্টেমটি তৈরি করেছে। তবে যেমনটা বললাম এই মিসাইল সিস্টেমের মাধ্যমে ব্যালিস্টিক মিসাইল, ফাইটার জেট কিংবা অ্যাটাক হেলিকপ্টারক, তাছাড়া ড্রোনকেও নামিয়ে আনা সম্ভব।

আর বর্তমানে এই মিসাইল সিস্টেমটি রয়েছে কেবল মাত্র ভারতীয় নৌ সেনা এবং এয়ার ফোর্স এর কাছে। আর এবার এই সিস্টেম আসতে চলেছে আর্মির হাতে, প্রায় 17 হাজার কোটি টাকার চুক্তি স্বাক্ষর করে এই মিসাইল সিস্টেমটি তৈরি করার জন্য। যেখানে DRDO ও ইসরাইলের ওই সংস্থায় একত্রে মিলে এটি তৈরি করেছে এটি। আর এই চুক্তি অনুযায়ী 200 মিসাইল এবং 40 টি ফায়ারিং ইউনিট তৈরি করার চুক্তি রয়েছে এতে।তাছাড়া এই সিস্টেমটির আরো একটি সুবিধা হল যে কোনো পরিবেশ এবং আবহাওয়ার মধ্যে একটি কাজ করতে সক্ষম তাই রণক্ষেত্র হোক বা কোন প্রতিকূল পরিস্থিতি হোক না কেন একই রকম ভাবে কাজ করতে পারে এটি।

গত দীর্ঘ দিন ধরে সেনার তরফ থেকে বারবার এটির জন্য কেন্দ্রকে চাপ দেওয়া হচ্ছিল। এই বিষয়ে এক অধিকারীক জানিয়েছেন আগামী তিন বছরের মধ্যে এই মিসাইল সিস্টেমটি পুরোপুরি তৈরি হয়ে যাবে, আর সেনার এরিয়াল অ্যাটাককে আরো মজবুত এবং শক্তিশালী করে তুলতে এরকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফ থেকে। ইতিমধ্যে ভারতের অস্ত্র ভান্ডারে যুক্ত হয়েছে ব্রহ্মোস মিসাইল। একেবারে দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই সুপারসনিক মিসাইল উৎক্ষেপণ করা হয়। যা শত্রু হেলিকপ্টার, এয়ারক্রাফট ও ড্রোনকে আঘাত করতে সক্ষম। তবে এর রেঞ্জ 25 কিলোমিটার। যদিও এটি আরও আধুনিক করে বাড়ানো হচ্ছে এর রেঞ্জ।

Related Articles

Back to top button